পানিতে পা ভিজলে পা-এর আঙুলের ফাঁকে (পাকই) বা ঘা হয়, এর ঔষধ বা প্রতিকার কী?

 

Sores between toes,sores between toes,fungal infection between toes,fungal infection between toes,how to prevent it,sores between toes,fungal treatment on toes,natural ways,home remedies to get rid of athlete's foot,fungus on feet Home remedies, ways to get rid of calluses, ways to improve calluses

পানিতে অধিক সময় পা ভিজে থাকলে কিংবা পা স্যাঁতস্যাঁতে অবস্থায় থাকলে অনেকেরই পায়ের আঙুলে ফাঁকে ঘা হতে দেখা যায়। যা ছত্রাক জনিত একটি সংক্রামক রোগ। চিকিৎসা বিজ্ঞানে একে টিনিয়া পেডিস বা অ্যাথলেটস ফুট বলা হয়।


কাদের বেশি হয়


যাদের পা সবসময় ভেজা থাকে, তারাই এ রোগে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়ে থাকেন।

এ ছাড়া একই মোজা বারবার পরা, সারা দিন আঁটসাঁট জুতা পরার কারণে পা'য়ে ঘাম হওয়ার কারণে ছত্রাকের সংক্রমণ ঘটে থাকে।সংক্রমিত ব্যক্তির কাপড়, মোজা, তোয়ালে, বিছানা ব্যবহার করলে অন্য ব্যক্তিও এই রোগ হতে পারেন।


প্রতিরোধ


সারা দিন জুতা–মোজা পরে থাকলে বাসায় ফিরেই জুতা খুলে পা বাতাসে শুকিয়ে নিবেন।


আঁটসাঁট জুতা পরবেন না এবং পা কম ঘামানোর জন্য সুতি মোজা পরবেন।

মোজা না ধুয়ে ১বারের বেশি পড়বেন না।


এ ছাড়া নখ দিয়ে চুলকাবেন না। এতে হাতও সংক্রমিত হবে।


সংক্রামণ হলে করণীয়


পেডিস বা অ্যাথলেটস ফুট হলে সাধারণত প্রাথমিক অবস্থায়ই শুকিয়ে যায় ডাক্তারের কাছে যেতে হয় না। প্রাথমিক অবস্থায় সংক্রমিত জায়গায় সরিষার তেল ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে সংক্রমণ যদি ১০-১২ দিনেও ভালো না হয় তখন ডাক্তারের শরণাপন্ন অবশ্যই হতে হবে। কোন ভাবেই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ব্যতিত কোন ঔষধ খাওয়া যাবে না। আর ডায়াবেটিস রুগীদের প্রাথমিক অবস্থাতেই(৭ দিন পর) চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে।


মনে রাখবেন, পায়ে ঘা সামান্য রোগ মনে হলেও এর থেকে দীর্ঘমেয়াদি ও গুরুতর জটিলতা দেখা দিতে পারে। এতে গ্যাংগ্রিনও হতে পারে, পায়ে পচন ধরতে পারে। পা বা পায়ের অংশবিশেষ কেটে ফেলার দরকারও হতে পারে। এমনকি সংক্রমণ ছড়িয়ে গেলে সেপটিসেমিয়া হয়ে রোগীর মৃত্যুও হতে পারে। তাই পায়ের ঘাকে অবহেলা করবেন না।


Share It